যে কাজ জানা থাকলে গ্যাস সিলিণ্ডার কখনোই বিস্ফোরিত হবেনা

gas cylinder

গ্যাস সিলিণ্ডার বিস্ফোরিত হয়ে আহত নিহত হবার খবর আমরা প্রায়ই শুনি। অনেকেই ভয়ে কুকড়ে উঠি। কেননা নাগরিক জীবনে এই সিলিণ্ডার এখন ব্যবহার না করে উপায় নেই। গ্যাসের চাপ না থাকা বা নতুন ভবনে গ্যাসের সংযোগ না থাকায় ঢাকাসহ দেশের প্রায় সকল স্থানে বোতল গ্যাস ব্যবহার করা হয়।
আসুন জেনে নেই সিলিণ্ডার কত টুকু নিরাপদ।
সত্যি করে বলতে গেলে আমাদের দেশের প্রতিটি সেক্টরে রয়েছে অনিয়ম তাই সিলিণ্ডারের মেটাল যতটুকু থিকনেস থাকার কথা অনেক সময় তা থাকেনা। এমন কি মেয়াদ চলে যাবার পরেও ব্যবহার হয়ে থাকে অনেক সিলিণ্ডার।
ঝকঝকে রং দেখে হয়ত আপনি নতুন ভাবছেন কিন্তু সেটি মেয়াদহীন। এরকম মেয়াদহীন পুরাতন সিলিণ্ডার একটি বোমের মতই রিস্কি ! কারন গ্যাসের চাপ সহ্য করার মত ক্ষমতা তার অনেক সময় থাকেনা।
বোতলের মেটাল পুরু(থিকনেস) কম থাকলেও বিস্ফোরিত হতে পারে।
অনেকেই যেটা করেন তা হলো চুলার পাশেই অথ্যা‌ৎ ২/৩ ফুটের মধ্যই বোতল টি রাখেন। এটা ঠিক না। পাইপ টি একটু বড় কিনে যতটা সম্ভব চুলা থেকে দুরে বোতল টি খাড়া ভাবে রাখবেন।
আর বোতলের উপরের রেগুলেটর টি ভাল মানের কিনবেন। অনেক সময় রেগুলেটর খারাপ হলে তা থেকে গ্যাস লিকেজ করে দু:ঘটনার সম্ভবনা তৈরি করে। রান্নাঘরের জানালা খুলে রাখবেন। মনে রাখবেন গ্যাস আটকে না রাখলে ওরা ক্ষতি করে না।
তাই চুলা জ্বালানোর আগে রান্নাঘরের জানালা খুলে নিন।
অটো ইগনেশন হয় এমন চুলা ব্যবহারেও সতর্ক থাকুন।
ঠাণ্ডা ও অবাধ বাতাস চলাচল করে এরকম স্থানে সিলিন্ডার রাখতে হবে। এমন ভাবে রাখবেন যাতে বোতলটি হুট করে পড়ে না যায় !
ব্যবহার শেষে সিলিন্ডার বাল্বের মুখে সেফটি ক্যাপ টি অবশ্যই মনে করে আটকে রাখবেন । তাপ ও আগুনের উৎস এবং দাহ্য বস্তু ও গ্যাস থেকে সিলেন্ডার দূরে রাখতে হবে।
সিলিন্ডার এবং বাল্বে তেল বা গ্রিজ ব্যবহার করা যাবে না।
রেগুলেটর বা ভালভ খোলা এবং বন্ধ করার সময় অযথা বল প্রয়োগ করা যাবে না।
অভিজ্ঞতা না থাকলে কিছুতেই সিলেন্ডার বা চুলা মেরামত করতে যাবেন না।
গ্যাস সিলিণ্ডার কে যথেষ্ট সতর্কতার সংগে ব্যাবহার করুন।
মাঝে মাঝে আপনার চুলা সিলিণ্ডার আর রেগুলেটর ভালভ টি অভিজ্ঞ টেকনেশিয়ান দিয়ে পরীক্ষা করিয়ে নিন।

এই লেখা আমার বাস্তব জ্ঞান থেকে নেওয়া ।  লাইক কমেন্ট শেয়ার দিয়ে একটিভ থাকুন। শুভ কামনা।

MM Obaydur Rahman

+01922009984gas cylinder